ঘি এর উপকারিতা নিয়ে আজকের আলোচনা

Posted by nabil_crm 14/08/2022 0 Comment(s)
ঘি এর উপকারিতা নিয়ে আজকের আলোচনা:
 
অনন্য পুষ্টি গুণ সমৃদ্ধ খাবার ঘি। যা খাওয়ায় রয়েছে কতিপয় অনেক উপকারিতা। ঘি এর উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানেন না এমন মানুষের সংখ্যা অতি নগণ্য। তবুও আজ হাজির হলাম ঘি এর উপকারিতা সম্পর্কে আপনাদের জানাতে। 
 
ভিটামিনের উৎস হিসেবে ঘি এর উপকারিতাঃ
 
ঘি এ রয়েছে মাল্টি ভিটামিন। অর্থাৎ অনেক ভিটামিনের পরিপূরক এই ঘি। ভিটামিন এ, ভিটামিন কে, ভিটামিন ই ও ভিটামিন ডি রয়েছে ঘি এ। প্রাকৃতিকভাবে  উৎপন্ন হওয়া ঘি এর মধ্যে রয়েছে বিউটারিক এসিড ও লিইনোলিক এসিড। এর সাথে কিছু পরিমাণ ভিটামিন বি ও আছে।  যার ফলে আপনি যদি চর্বিজাতীয় খাবার এর সাথে এটা খান তাহলে আপনার শরীরে এটি ভালোভাবে শোষিত হবে। অর্থাৎ চর্বি আপনার শরীরে তেমন কোনো ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারবে না।
ঘি-তে মাল্টি ভিটামিন থাকার জন্য ঘি সেবনে রয়েছে কতিপয় অনেক উপকার।
 
ঘি সেবনে কিছু উপকার নিচে তুলে ধরা হলো:
 
১.ঘি এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ।   ভিটামিন এ শরীরের জন্য খুবই উপকারী যার কারণে আমরা নিয়মিত খেলেও কোনো সমস্যা হয় না। ভিটামিন এ থাকায় এটি চোখের জন্য ভালো। গ্লুকোমা রোগীদের জন্য উপকারী। এটি চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এটি বিশেষ করে অপটিক নার্ভ এর উন্নয়ন ঘটায়। যার কারণে আমাদের দৃষ্টি শক্তি ভালো থাকে। শুধু তাই না ঘিয়ে আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।  যার ফলে যেকোনো রোগ সহজে আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারবে না। ঘি আপনি নিয়মিত খেলে আপনার দৃষ্টিশক্তি ভালো থাকবে এবং দৃষ্টিশক্তি কম থাকলে তা ভালো করার চেষ্টা করবে।
২.ত্বকের শুষ্কতা দূর করে তা আর্দ্র রাখতে সাহায্য করে ঘি। তাই রুপ চর্চায় ঘি খুব ভালো কাজে লাগে। শীতের দিনে রুপ চর্চায় ঘি এর জুড়ি নেই। 
৩. ঘি খেলে যে হরমোন নিঃসরণ হয়, এতে শরীরের সন্ধিগুলো ঠিক থাকে। হাড় গঠনে সহায়তা করে থাকে ঘি।
৪. ঘি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ বলে অন্য খাবার থেকে ভিটামিন ও খনিজ শোষণ করে শরীরকে রোগ প্রতিরোধে সক্ষম করে তোলে।
৫. পোড়া ক্ষত সারাতে কাজ করে ঘি। চিকিৎসা শাস্ত্রে আছে ঘি খেলে মস্তিষ্কের ধার বাড়ে ও স্মৃতিশক্তি বাড়ে।
ঘি অবশ্য অল্প পরিমাণে খাওয়াই ভালো। যাদের কোলস্টেরলের সমস্যা আছে তাঁদের ঘি এড়িয়ে চলা উচিত।

Write a Comment